২০০টাকা উদ্ভোধনী মূল্য ছাড়

সিরাজগঞ্জ, শাহজাদপুরের দানাদার খাঁটি ঘি (GHEE)

Sale!

1,350.00৳ 

উদ্ভোধনী অফার মুল্যঃ ১৩৫০ টাকা কেজি 
(সীমিত সময়ের জন্য)
রেগুলার মুল্যঃ ১৫৫০ টাকা কেজি
উদ্ভোধনী অফার মুল্যঃ ১৩৫০ টাকা কেজি
গাওয়া ঘি এর উপকারিতাঃ

✅ হাড়ের জন্য: ঘিয়ের ভিটামিন ‘কে’ ক্যালসিয়ামের সঙ্গে মিলে হাড়ের স্বাস্থ্য ও গঠন বজায় রাখে। স্বাস্থ্যকর ইনসুলিন ও শর্করার মাত্রা বজায় রাখতে কাজে লাগে ভিটামিন ‘কে।” বলেন চ্যাডউইক। ঘিতে যেসব ভিটামিন রয়েছে -এ, ডি, ই এবং কে, যা আমাদের হৃৎপিন্ড,হাড়ের জন্য খুব উপকারী। এই ঘিয়ের মধ্যে রয়েছে প্রাকৃতিক লুব্রিকেন্ট যা গিঁটে ব্যথা ও আর্থ্রাইটিসের সমস্যা সমাধানে কাজ করে। তাছাড়া এর মধ্যে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড। এটি অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধে কাজ করে এবং হাড়কে ভালো রাখে।

✅ চুল পড়া প্রতিরোধ করে: খালি পেটে ঘি খেলে চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। এটি চুল পড়া প্রতিরোধে সাহায্য করে। ঘি চুল নরম, উজ্জ্বল করতে উপকারী।

✅ ত্বকের উজ্জলতা বাড়ায়: ঘিয়ের মধ্যে কোষকে পুনর্গঠন করার ক্ষমতা রয়েছে। ত্বকের প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা বাড়ায় এবং ত্বক ভাল রাখতে সাহায্য করে। ঘি ত্বকের ময়েশ্চার করে, ত্বকের রোগ সোরায়াসিস কমাতে কাজ করে।

✅ উপকারি কোলস্টেরল: কোলস্টেরল দু ধরনের- উপকারি ও ক্ষতিকর।ঘিতে রয়েছে উপকারি কোলস্টেরল। ঘিতে রয়েছে কনজুগেটেড লিনোলেক অ্যাসিড। এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের অ্যান্টি-ভাইরাল গুণ রয়েছে।যা ক্ষত সারাতে সাহায্য করে।ডেলিভারির পর নতুন মায়েদের ঘি খাওয়ানো হয় এই কারণেই।

✅ভিটামিনের উৎসঃ বিশেষজ্ঞের মতে ” প্রাকৃতিকভাবেই ঘিতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন A, লাইনোলেইক এসিড ও বিউটাইরিক এসিড থাকে। দৃষ্টিশক্তি, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, জননাঙ্গ ইত্যাদির উন্য ভিটামিন “A” অত্যন্ত উপকারী।

✅ স্মৃতিশক্তি বাড়ায় : নিউট্রিশনিস্টদের মতে নার্ভের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সার্বিকবাবে ব্রেন পাওয়ারের উন্নতিতে ঘি-এর কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আসলে এত উপস্থিত ওমাগা- ৬ এবং ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড শরীর এবং মস্তিষ্ককে চাঙ্গা রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি প্রাকাশিত বেশ কিছু গবেষমায় দেখা গেছে এই দুই ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড ডিমেনশিয়া এবং অ্যালঝাইমারসের মতো রোগের প্রকোপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

✅ কনজুগেটেড লিনোলেক অ্যাসিড: এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের অ্যান্টি-ভাইরাল গুণ রয়েছে। যা ক্ষত সারাতে সাহায্য করে। ডেলিভারির পর নতুন মায়েদের ঘি খাওয়ানো হয় এই কারণেই।

✅ ওজন কমায় ও এনার্জি বাড়ায়: ঘিয়ের মধ্যে থাকা মিডিয়াম চেন ফ্যাটি অ্যাসিড খুব দ্রুত এনার্জি বাড়াতে সহায়তা করে থাকে।অধিকাংশ অ্যাথলিট দৌড়নোর আগে ঘি খান। এর ফলে ওজনও কমে।

✅ হজম ক্ষমতা বাড়ায়: ঘিতে রয়েছে প্রচু বাটাইরিক অ্যাসিড, যা আমাদের খাবার তাড়াতাড়ি হজম করতে সাহায্য করে।যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন, তাদের জন্য ঘি খুবই উপকারী।

✅ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস থাকায়, ঘি আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।ঘি এর বৈশিষ্ঠ্য হল নষ্ট হয় না- ঘি সহজে নষ্ট হয় না। দীর্ঘ দিন পর্যন্ত ঠিক থাকে ঘি।

অ্যালার্জি কমায়: ‘ল্যাকটোজ ইনটলেরেন্ট’ বা দুধ ও দুগ্ধজাত খাবারে যাদের পেটের গড়বড় হয় তাদের জন্য আদর্শ  হতে পারে ঘি।